শব্দের থেকে ৫ গুণ বেশি,ভয়ানক গতিতে গ্রিনল্যান্ডে আছড়ে পড়ল গ্রহাণু! কি ঘটল তারপর?

0
394

 (NASA) জানিয়েছিল যে পৃথিবীর খুব কাছ দিয়েই যাবে মোট চারটি গ্রহাণু (Asteroids)। তবে এর মধ্যে তিনটি গ্রহাণু পৃথিবীর পাশ কাটিয়ে বেরিয়ে গেলেও একটি গ্রহাণু আছড়ে পড়েছে পৃথিবীর বুকে। তিনটি গ্রহাণুর থেকে রক্ষা পেলেও একটি গ্রহাণু আছড়ে পড়েছে ধরিত্রীর বুকে।

আগে শোনা গিয়েছিল, পৃথিবী থেকে মাত্র ২৮৯০ কিলোমিটার দূর দিয়ে বেরিয়ে যাবে গ্রহাণুটি। তবে তা ঘটে না। মাধ্যাকর্ষণের টানে নিজের গতিপথ পরিবর্তন করতে বাধ্য হয় গ্রহাণুটি। সরাসরি পৃথিবীর বুকে এসে পড়ে। গ্রিনল্যান্ডে এই গ্রহাণু আছড়ে পড়ে। ১১ মার্চ সেই গ্রহাণুটি আছড়ে পড়ল গ্রিনল্যান্ডের পরিত্যক্ত অঞ্চলে। এখনও পর্যন্ত যা খবর, এর প্রভাবে মারাত্মক কোনও ক্ষয়ক্ষতি হয়নি।

প্রতিবেদন অনুসারে, এই পাথরটি প্রথম দেখা গিয়েছিল ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৫ সালে। এটি ১১ মার্চের মধ্যে পৃথিবীর কাছাকাছি আসবে, তবে বিজ্ঞানীরা বলেছেন যে এটি নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার দরকার নেই। তাঁদের মতে, এটি পৃথিবীর সঙ্গে সংঘর্ষে লিপ্ত হবে না বা এত কাছ দিয়ে যাবে না যাতে কোনও ধরনের ক্ষতি হয়। তবে বিজ্ঞানীরা স্পষ্ট বলেছেন যে এটি যদি পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে প্রবেশ করে তবে এটি বিশাল আকারের একটি গর্ত তৈরি করতে পারে।

শনিবার ভোররাত তিনটে ৫৭ মিনিট থেকে ভোর চারটে ১ মিনিটের (ভারতীয় সময় অনুযায়ী) মধ্যে আইসল্যান্ড উপকূলের কাছে ‘EB5’ নামে গ্রহাণু আছড়ে পড়েছে বলে ‘ইনফ্রাসাউন্ডে’ ধরা পড়েছে। যে গ্রহাণুর প্রস্থ তিন থেকে চার মিটার ছিল। প্রতি সেকেন্ডে গতি ছিল ১৫ কিলোমিটার।

বিজ্ঞানীরা বলছেন এই গ্রহাণুটিই ছিল ওই চারটির মধ্যে সবচেয়ে ছোট। মাত্র ১.২ মিটার চওড়া। ১২ মার্চ গ্রিনল্যান্ডের একটি পরিত্যক্ত এলাকায় এই গ্রহাণু আছড়ে পড়েছে। তবে আকার আয়তনে ছোট হওয়ায় এবং পরিত্যক্ত এলাকা হওয়ায় এই গ্রহাণু থেকে তেমন ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। এ যাত্রায় এড়ানো গিয়েছে বড়সড় বিপদ।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here