শ্বশুরবাড়ি গিয়ে খুলল কপাল, রাতারাতি কোটিপতি হলেন জামাই…

0
30
কোটিপতি জামাই

 

শ্বশুর বাড়ি গিয়েছিলেন জামাই আদর খেতে, কিন্তু শ্বশুর বাড়ি গিয়ে যে তার একেবারে ভাগ্য বদলে গিয়ে কোটিপতি হয়ে যাবেন সে কথা বোধহয় ভাবতে পারেননি আসানসোলের বাসিন্দা শ্রীধর রুইদাস।

আসানসোলের বাসিন্দা পেশায় বেসরকারি কোম্পানির নিরাপত্তারক্ষী শ্রীধর রুইদাস শনিবার জামুড়িয়ার শিবপুর এলাকায় শ্বশুর বাড়ি গিয়েছিলেন। সেখানেই বেলা এগারোটা নাগাদ একটি লটারির টিকিট কাটেন শ্রীধর। তার কয়েক ঘণ্টা পরেই দুপুর দেড়টা নাগাদ তিনি জানতে পারেন সেই লটারির টিকিটের প্রথম পুরস্কার অর্থাৎ নগদ 1 কোটি টাকা জিতেছেন তিনি।

 

পশ্চিম বর্ধমান জেলার আসানসোল পুরনিগমের ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা শ্রীধর রুইদাস। নিরাপত্তাকর্মী হিসাবে কাজ করেন এক বেসরকারি সংস্থায়। তবে মাঝে মধ্যেই লটারির টিকিট কাটার ঝোঁক ছিল তাঁর। কিন্তু কোনও বারই ভাগ্য সহায় হয়নি শ্রীধরের। অবশেষে ভাগ্য খুলল তাঁর। রাতারাতি আমির হয়ে উঠলেন জামাই।

শনিবার সকালে শ্বশুরবাড়ি এসে স্থানীয় বাজারে লটারির টিকিট কাটেন শ্রীধর। দুপুর দেড়টা নাগাদ জানতে পারেন, লটারির প্রথম পুরস্কার এক কোটি টাকা পেয়েছেন তিনি। তবে তার পরও টিকিট কাটা থামাননি। বিকালে ফের টিকিট কাটেন। কাকতালীয় ভাবে তাতেও জেতেন কয়েক লাখ টাকা।

পর পর দুবার লটারি জিতে আনন্দে আত্মহারা হয়ে শ্বশুরবাড়ির সবাইকে খবরটি জানান জামাই। আস্তে আস্তে খবরটি ছড়িয়ে পড়ে পুরো এলাকায়।

ঘটনা জানাজানি হতেই হইচই পড়ে যায় এলাকায়। শ্রীধর এর বৃহস্পতি তুঙ্গে ভেবে তাকে তার আত্মীয়রা আরো লটারির টিকিট কাটার পরামর্শ দেয়। এরপর সেই মতন টিকিট কাটেন শ্রীধর। আর তারপরেই আবারো ঘটে চমৎকার। আশ্চর্যজনকভাবে বিকেলে আরো নগদ কয়েক লক্ষ টাকা জিতে যান তিনি। জামাইকে নিয়ে রীতিমতো হইচই পড়ে যায় শ্বশুর বাড়ির এলাকায়।

 

 

 

 

 

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here