১ সেকেন্ডে ডাউনলোড হবে ৩ লক্ষ সিনেমা, ইন্টারনেট স্পিডে বিশ্ব রেকর্ড গড়ল এই সংস্থা!!

0
105
highspeed-internet

লকডাউনে ঘরবন্দি সারা বিশ্বের মানুষ!শুরু হয়েছে অনলাইন ক্লাস এবং ওয়ার্ক ফ্রম হোম। এর দরুন ইন্টারনেটের অপর আগের থেকে কয়েক গুন চাপ বেড়েছে… তাই চাহিদা বাড়ার সাথে সাথে ইন্টারনেটের স্পীড অক্ষুন্ন রাখতে বদ্ধপরিকর ইন্টারনেট কানেকশন প্রোভাইডার রা। যদিও একথা সবসময় মনে রাখতে হবে যে উপভোক্তাদের ব্যবহারযোগ্য ইন্টারনেট পরিষেবার গতি যত বেশীই হোক না কেন, ইন্টারনেটের প্রকৃত গতির তুলনায় তা সামান্য মাত্র! সাধারণের ব্যবহার-উপযোগী ইন্টারনেটের সর্বোচ্চ গতিবেগ কখনোই তার আসল দ্রুততাকে স্পর্শ করতে পারে না। তাই আমাদের পক্ষে কখনোই সর্বোচ্চ গতির ইন্টারনেট পরিষেবা ব্যবহার সম্ভব নয়।

 

জাপানের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ইনফরমেশন অ্যান্ড কমিউনিকেশনস টেকনোলজি’র  কয়েকজন গবেষক সম্প্রতি বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুতগতির ইন্টারনেট ব্যবহারের আস্বাদ পেয়েছেন।জাপানের এই প্রতিষ্ঠানের প্রকৌশলীরা তিন হাজার কিমির বেশি বিস্তৃত এক অপটিক ফাইবারে প্রতি সেকেন্ডে ৩১৯ টেরাবাইট গতিতে ডেটা স্থানান্তর করতে পেরেছেন। অর্থাৎ, জাপানের এই প্রতিষ্ঠানটি প্রতি সেকেন্ডে ৩১৯ টেরাবাইট ইন্টারনেট গতি অর্জন করতে পেরেছে।

এই গতির সাহায্যে প্রতি সেকেন্ডে এই পরিমাণ ইন্টারনেট গতির অর্থ – মাত্র ১ সেকেন্ডে লো রেজোলিউশনের ৩ লাখ সিনেমা ডাউনলোড করা যাবে। আর হাই রেজোলিউশন সিনেমার ক্ষেত্রে সংখ্যাটা কমে হবে ৫৭ হাজার।

যদিও ইন্টারনেট গতির এই ব্যাপক উন্নয়নের কথা শুনে আমাদের বিশেষ কোন লাভ নেই। কারণ উপভোক্তা নির্ভর পরিষেবার ক্ষেত্রে কখনোই এত দ্রুতগতির ইন্টারনেট সরবরাহ সম্ভব নয়। যে কোন সংস্থার পক্ষেই এই অসাধ্য সাধন করা অসম্ভব। এছড়াও নানান রিসার্চ সংস্থা এবং মহাকাশ গবেষণা ইত্যাদি বিষয়ে এই পরিমান স্পীড পাওয়া যেতে পারে…

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here