বাংলায় শুরু হল এক দেশ এক রেশন কার্ড, কী সুবিধা পাবেন সাধারণ মানুষ? দেখুন…

0
1858
Ration Card

দেশজুড়ে প্রতিটি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে ‘এক দেশ, এক রেশন কার্ড’ প্রকল্প  বাস্তবায়নের নির্দেশ দেয় সুপ্রিম কোর্ট, সেমতে পশ্চিমবঙ্গেও চালু হয়ে গেল ‘এক দেশ, এক রেশন কার্ড’ব্যবস্থা।  এ বার নির্দেশিকা জারি করে এই নিয়ম কার্যকর করার কথা জানিয়ে দিল নবান্ন।গোটা দেশের পাশাপাশি রাজ্যের পরিয়ায়ী শ্রমিকদেরও আর খাদ্যাভাবে পড়তে হবে না। সেজন্য পরিযায়ী শ্রমিকরা ভিন রাজ্যে গিয়ে যাতে খাদ্যাভাবে না পড়েন। সেকারণে এই প্রকল্প চালু করে দেওয়া হল। পাশাপাশি পশ্চিমবঙ্গের রেশন গ্রাহকরা ভিন রাজ্যে গিয়েও খাদ্যশস্য সংগ্রহ করতে পারবেন। জাতীয় খাদ্য সুরক্ষা প্রকল্পের (এনএফএসএ) আওতায় থাকা রেশন গ্রাহকরাই এই সুযোগ পাবেন।

রাজ্যের রেশন ডিলারদেরকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে, যাতে গ্রাহকদের পূর্ণাঙ্গ তথ্য পোর্টালে জমা হয়, সেজন্য অনলাইনে প্রতিদিন লেনদেনের রেকর্ড রাখতে হবে। দুর্নীতি রুখতে এসএমএস সিস্টেমও চালু হচ্ছে এবার থেকে, জানান খাদ্যমন্ত্রী, । রেশন তুললেই এসএমএস আসবে। এর ফলে রেশন তোলা নিয়ে যে দুর্নীতির অভিযোগ উঠত তা অনেকটাই রোধ করা যাবে বলে বক্তব্য তাঁর। সরকারের তরফে কত পরিমাণ ও কী কী খাদ্যসামগ্রী বরাদ্দ করা হচ্ছে, তা গ্রাহকরা নিজেদের মোবাইল নম্বরে এসএমএসের মাধ্যমে জানতে পারবেন। ফলে, রেশন ডিলারদের বিরুদ্ধে সামগ্রী নিয়ে যে তছরুপের অভিযোগ ওঠে, তারও কিছুটা নিষ্পত্তি হবে।

Ration Card

 

রাজ্য সরকারের নির্দেশে বলে দেওয়া হয়েছে, যাঁদের রেশন কার্ডের সঙ্গে আধার কার্ড যুক্ত করা আছে, তাঁরা যে কোনও রেশন দোকান থেকে প্রয়োজনীয় সামগ্রী সংগ্রহ করতে পারবেন। তবে রেশন তোলার সময় আধার ভিত্তিক যে বায়োমেট্রিক ব্যবস্থা রয়েছে, তাতে নিজের পরিচয় প্রমাণ করতে হবে। সোজা কথায়, আঙুলের ছাপ দিয়ে কার্ডের বিষয়ে সত্যতা প্রমাণ করতে হবে রেশন নিতে গেলে।

 

বর্তমানে   মোট ৩৩ রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে জাতীয় খাদ্য নিরাপত্তা আইনের আওতায় প্রায় ৮৭ শতাংশ মানুষকে প্রকল্পভুক্ত করা হল। বায়মেট্রিক রেশন ব্যবস্থা অথবা আধার সংযোগ থাকলেই দেশের যেকোনও প্রান্ত থেকে রেশন সংগ্রহ করতে পারবেন গ্রাহকরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here